মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
দেশব্যাপী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সন্তানদেরকে হত্যা মামলা হামলার প্রতিবাদে রাজধানীতে বাউবি ঐক্য পরিষদের মানববন্ধন রাস্তার উপর বারান্দা বানিয়ে পথচারীদের দুর্ভোগ সোনারগাঁয়ের সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ঝালকাঠি-পিরোজপুর সড়ক দূর্ঘটনায় আহত ৫ ত্রিশাল পৌর নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী মামুন অর রশীদ গোলাম সারোয়ার সাঈদীর ইন্তেকাল কোভিড-১৯ দ্বিতীয় পর্যায়ে সংক্রমণ মোকাবেলায় হাইমচরে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে র‍্যালী ও মাস্ক বিতরণ রাত আটটার পর দোকানপাট, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান বন্ধ__ তাপস মনের মানুষটাকে জীবন সঙ্গী করতে গিয়ে লাশ হলো লালমনিরহাটের সুমন কিশোরগঞ্জে পৌরসভা নির্বাচন ঘিরে চলছে পোস্টার-ফেস্টুনে প্রচারণা

মুসলমানদের ওপর চীনের নির্যাতনে মুসলিম দেশগুলো চুপ কেন

বছরের পর বছর ধরে চীনের জিনজিয়াংয়ে বসবাসরত লাখ লাখ মুসলমান ‘সংখ্যালঘু’ ভেবে নির্যাতন করছে বেইজিং। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে কেউ কোনো কথা না বললেও মুসলমান দেশগুলো নীরব থেকেছে। একজন ব্রিটিশ সাংবাদিক মন্তব্য করেছেন, মুসলমান দেশগুলো শুধু নিজেদের স্বার্থেই ‘মুসলিম ঐক্যের’ ধারণাটি ব্যবহার করে। তারা চীনা নির্যাতিত মানুষের জন্য কোনো কথা বলে না।
সম্প্রতি দ্য গার্ডিয়ানে প্রকাশিত একটি কলামে এ মন্তব্য করেন সাংবাদিক কোহেন। তিনি বলেছেন, মুসলমানদের নীরবে নিপীড়িত হওয়ার প্রধান কারণ মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ যে দেশগুলো রুশদি, জিল্যান্ডস পোস্টেন এবং চার্লি হেবদোর বিরুদ্ধে ক্রোধে ফেটে পড়েছে, সেগুলো এখন নীরব থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারা ‘মুসলিম ঐক্যের’ ধারণাটি তখনই ব্যবহার করে, যখন নিজেদের স্বার্থে দরকার হয়।
তিনি লেখেন, জিনজিয়াংয়ে ‘স্বাধীন আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক’ দল পাঠানোর অনুমতি দিতে চীনকে আহ্বান জানায় জাতিসংঘ। ২০১৯ সালের জুলাই মাসে পাকিস্তান, সৌদি আরব, মিশর, সংযুক্ত আরব-আমিরাত, আলজেরিয়া এবং অন্য মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলো, যারা নিজেদের ইসলামের রক্ষক হিসেবে দাবি করে, তারাই এ পশ্চিমা সিদ্ধান্তের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে তা রুখে দিয়েছিল।
সেই লেখায় তিনি আরও উল্লেখ করেন, ইরান মাঝে মধ্যে সমালোচনা করলেও ট্রাম্প প্রশাসনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তারা চীনের সহায়তা চায় বলে খুব সতর্কতার সঙ্গে নিজেদের অভিযোগ জানায়। তাদের কপটতা অনেকটাই হাস্যকর। ইরান, সিরিয়া এবং আরও অন্য কয়েক ডজন দেশ একটি যাদুবাস্তব উপন্যাস সহ্য করতে পারেনি, অথচ গণহারে মুসলমান নারীদের বন্ধ্যা করে দেওয়ার বিষয়টি তারা মেনে নিয়েছে। বন্দিশিবিরের প্রতি তাদের চাপা সমর্থন আছে কিন্তু একটি ড্যানিশ পত্রিকার কার্টুনে কী ছাপা হবে তার সীমা তারা ঠিক করে দিচ্ছে।
জাতিসংঘে চীনের কণ্ঠ এখন আরও সক্রিয় এবং প্রভাবশালী হয়ে উঠেছে কারণ অসংখ্য দেশ চীনের ‘বেল্ট অ্যান্ড রোড’ অবকাঠামোগত প্রকল্পের কয়েক বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগে লাভবান হচ্ছে। বলেও উল্লেখ করেন তিনি। ’
চীনের সমালোচনা করে তিনি বলেন, চীনা বিশ্ব পাবলিসিটি থেকে পালিয়ে বাঁচতে চাওয়া নিপীড়কদের পছন্দ। আমরা আমাদের জনগণের সঙ্গে কী করি, তা নিয়ে তোমরা কিছু বলবে না এবং তাহলে তোমরা তোমাদের দেশের মানুষের সঙ্গে কী করো, তা নিয়ে আমরাও কিছু বলবো না।
তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস ছড়ানোর রেকর্ড এবং মুসলমান সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের বিরুদ্ধে কোনো সমালোচনাই শুনতে চায় না চীন। অন্যদিকে, বিষয়টি নিয়ে যাদের সবচেয়ে জোরালো প্রতিবাদ জানানোর কথা, তারা মাথা নিচু করে নীরবতা পালন করছে

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Dailyprotidinerkhobor
Design & Developed BY Freelancer Zone