সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৮:০৮ পূর্বাহ্ন

দুর্নীতির শীর্ষে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি

 

আহসান উল্লাহ বাবলু, সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি ঃ
সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি
দুর্নীতির শীর্ষে। সাতক্ষীরা পল­ী বিদ্যুৎ সমিতির মেন গেট সহ প্রত্যেক অফিস কক্ষে লেখ আছে আমি ও আমার অফিস দুর্নীতি মুক্ত। কিন্তু বাস্তাবে কতটা সঠিক তাহা সম্মানিত গ্রাহকরা হাড়ে হাড়ে বুঝতে পারছে। এ অফিসে মাধ্যম ছাড়া কোন কাজ হয় না। মাধ্যম ছাড়া পল­ী বিদ্যুৎতের কোন কাজ করতে গেলে হতে হয় হয়রানির শিকার। গত ২৬ ফেব্রুুয়ারি ২০২০ তারিখে বাহাদুর গ্রামের ভাই ভাই ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কসর্প এর মালিক আব্দুল­াহ একটি শিল্প মিটারের জন্য আবেদন করে। পল­ী বিদ্যুতের নিয়ম মাফিক তিনি গত ২৫ অক্টোবর ২০২০ তারিখে শিল্প মিটার বাবদ ৩২০০ টাকা জমা দিলেও এখনো তার মিটারের সংযোগ পাননি।
তিনি দৃষ্টিপাতকে বলেন দীর্ঘ ৮ মাস অতিবাহিত হলেও তারা আমাকে অফিসে ট্রান্সফরমার নেই বলে অযুহাত দিয়ে আসছে। কিন্তু একটি অফিসে দীর্ঘদিন ট্রান্সফরমার না থাকলে শেখ হাসিনার উদ্যোগে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎত জ্বলবে কিভাবে? অফিসে খোজ খবর নিয়ে দেখা যাচ্ছে আমার পরে অনেক জায়গায় ট্রান্সফরমা দিয়ে কাজ করে আসছে।
অপরদিকে বড়বিলা গ্রামের হাফিজুল শেখ ৭/৮ মাস আছে মাধ্যম ছাড়া মিটারের জন্য আবেদন করে। কিন্তু দুঃখের বিষয় আবেদনের কিছু দিন পরে হাফিজুল পল­ী বিদ্যুৎ অফিসের গিয়ে যোগাযোগ করলে তাকে সাফ বলা হয় আপনার কাগজটা পাওয়া যাচ্ছে না। আপনি আবার মিটারের জন্য আবেদন করেন। হাফিজুল ইসলাম পরবর্তীতে অফিসের গিয়ে উৎকোচ দিয়ে খুশি করলেই মিটারের কাগজপত্র বেরিয়ে আসে। অফিস নিয়ম মাফিক আবাসিকের জন্য মিটার জানামনত বাবদ ৪০০ এবং ৫০ টাকা সদস্য ফি নেওয়ার কথা থাকলেও অফিস হাতিয়ে নিচ্ছে ৬৫০ টাকা। এভাবে চলছে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দুর্নীতি। এ বিষয় সাতক্ষীরা
পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজারের প্রকৌশলী সন্তোষ কুমার সাহার সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আপনারা যে অভিযোগ করেছেন তা সত্য নয়। আর যাদের এ সমস্যা তাদের নামের তালিকা দেন আমি বিষয়টি দেখছি।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Dailyprotidinerkhobor
Design & Developed BY Freelancer Zone